কেন নতুন করে আপনার অফিস ডিজাইন করবেন

আপনি যখন নতুন বিজনেস প্ল্যান নিয়ে ভাবছেন, তখন অফিস ডিজাইনের ব্যাপারটি হয়তো প্রথমেই আপনার মাথায় আসবে না। যদিও, কর্মীদের সৃজনশীলতা এবং কাজের উদ্দীপনা তৈরিতে অফিস ডিজাইন একটি গুরুত্বপুর্ন পার্ট।

এখানে আমরা ৮ টি কারন উল্লেখ করেছি, কেন আপনি আপনার অফিস নতুন করে ডিজাইনের ক্ষেত্রে বিনিয়োগ করবেন:

০১. অফিস ডিজাইন ট্রেন্ডের সাথে আপ টু ডেট থাকা:

এখনকার সময়ের ব্যাবসায়িক পরিবেশে সবচেয়ে দ্রুত বর্ধনশীল ধারনা হল অফিস ইন্টেরিয়র ডিজাইন। আজকাল বেশিরভাগ উদ্দোক্তারাই তাদের অফিস স্পেস পছন্দ কারার সময় ইন্টেরিয়র এর ব্যাপারটি বিবেচনায় রাখেন। সেই সাথে ডিজাইনের ব্যাপারেও এসেছে নতুন ধারনা। ব্যাবসায়িক কালচারে এটি একটি বিবর্তন বলা যেতে পারে।

০২. বর্তমান স্টাফদের পাশাপাশি নতুন ট্যালেন্টদেরকে আকৃষ্ট করা:

নতুন জেনারেশন কর্মক্ষেত্রে প্রবেশ করছে। অন্য জেনারেশনের তুলনায় এই জেনারেশন বেড়ে উঠছে টেকনোলোজির এডভান্স ব্যাবহারের মধ্য দিয়ে। কোম্পানিগুলো এদের মধ্য থেকে সেরা ট্যালেন্টেগুলোকে বের করে নিচ্ছে তাদের থেকে সেরা সার্ভিস পাওয়ার জন্য। অার এই জেনারেশনকে আকৃষ্ট করে দৃষ্টিনন্দন ইন্টেরিয়র ডিজাইন, কারন তারা সিলিকন ভ্যালির অফিস ডিজাইন এবং কালচারের ব্যাপারে যথেষ্ট অবগত।

০৩. স্টাফদের মনোবল বৃদ্ধিতে উৎসাহ প্রদান:

ভাল অফিস সেটাপ এর একটি ভাল গুন হল এখানে স্টাফদের মনোবল বৃদ্ধির জন্য পর্যাপ্ত ব্যাবস্থা থাকে। অফিসের মধ্যে একটি ডেডিকেটেট ব্রেকআউট এর জায়গা অথবা একটি টেবিল টেনিস খেলার ব্যাবস্থা থাকলে সেটা ব্যাপক প্রভাব ফেলে। কাজের মধ্যে একটু ব্রেক নেয়ার ব্যাপারে এটি স্টাফদেরকে উৎসাহিত করবে যার ফলে তাদের সৃজনশীলতা রিচার্জ হবে।

০৪. অফিস কালচার তৈরি করা:

নতুন অফিস ডিজাইনের ক্ষেত্রে অফিস কালচার সবচেয়ে গুরুত্বপুর্ন ব্যাপার। আপনার কোম্পানীর লক্ষ্যগুলি পুরনের চেষ্টা যারা করছেন আর্থাৎ কোম্পানীর স্টাফগন, তাদের প্রত্যেকের আলাদা ভ্যালু রয়েছে। অনেকগুলি গ্রুপ স্পেস দিয়ে একটি সহযোগী ও নমনীয় ডিজাইন তৈরি করা বর্তমান অফিস কালচারকে সমর্থন করে এবং কর্মীদেরকে উৎসাহিত করে।

০৫. কর্মীদের প্রোডাক্টিভিটি বৃদ্ধিতে সহায়তা করা:

দীর্ঘদিন যাবৎ একই অফিসের মধ্যে কাজ করা অনেক সময় কর্মীদের প্রোডাক্টিভিটিতে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। একটি নতুন অফিস ডিজাইন যেমন তাদের প্রোডাক্টিভিটি বৃদ্ধিতে সহায়ক, তেমন তারা একটি ইতিবাচক পরিবেশে সুখী হয়।

০৬. পারস্পরিক সহযোগীতা এবং অভ্যন্তরীন যোগাযোগ ব্যাবস্থার উন্নয়ন:

একটি সু-পরিকল্পিত অফিস ডিজাইন কর্মীদেরকে পারস্পরিক যোগাযোগের সুযোগ তৈরি করে দেয়। এছাড়া কর্মীদরে মধ্যে সম্পর্কের উন্নয়ন এবং কোম্পানীর মধ্যে একটি শক্তিশালি নেটওয়ার্ক গঠনে ভুমিকা পালন করে।

০৭. কোম্পানীর ব্র্যান্ড ভ্যালু উন্নয়ন:

একটি দৃষ্টিনন্দন অফিস ইন্টেরিয়র ডিজাইন নতুন ক্লায়েন্টদের কাছে অবিশ্বাস্য ইম্প্রেশন দেয় যা তার মেমোরিতে থেকে যাবে। অন্যদিকে, ক্লায়েন্ট যদি একটি পুরানো এবং ক্লান্ত অফিস ভিজিটে যায়, সেখানে সে যে কোন প্রকার ইনোভেটিভ বিষয় নিয়ে কথা বলার মুড হারিয়ে ফেলবে যা কোম্পানীটির ব্র্যান্ড ভ্যালুর উপর নেতিবাচক প্রভাব ফেলবে।

০৮. নতুন টেকনোলজীতে আপগ্রেড হওয়া:

আপনার অফিস সেটাপ নতুন টেকনোলজীতে আপগ্রেড না হলে এটি দক্ষতা হারাবে। কর্মীদের যোগাযোগের উন্নয়ন এবং তাদের কর্মপ্রবাহ বৃদ্ধিতে অবশ্যই টেকনোলজী আপগ্রেড করতে হবে।

তথ্যসুত্র: Oktra

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *